রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০৮:৫০ পূর্বাহ্ন

নোটিশঃ
দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় জিটিবি নিউজ এর সাংবাদিক  নিয়োগসহ পরিচয় পত্র নবায়ণ চলছে।
সংবাদ শিরোনামঃ
প্রধানমন্ত্রীর জনসভা: রাজশাহীতে চলবে বিশেষ ৭ ট্রেন বগুড়ার একটি সংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ৪২ বগুড়া-০৭ এর সংসদ সদস্য মোঃ রেজাউল করিম বাবলু রুপসীপল্লী টাওয়ার অল্প টাকায় সাধ্যের মধ্যে মানসম্মত ফ্লাট দিতে সক্ষম প্রধানমন্ত্রীকে বরণে রাজশাহী নগরীজুড়ে বর্ণিল সাজ গভীর রাতে হিরো আলমের জন্য বগুড়ায় ভোট চাইলেন চিত্রনায়িকা মুনমুন পদযাত্রা দিয়ে বিএনপির নতুন আন্দোলন শুরু: ফখরুল বিএনপির পদযাত্রা নয় মরণযাত্রা শুরু হয়ে গেছে: কাদের আফগানিস্তানফেরত ফখরুল হাল ধরেন হুজির, ছিল বড় হামলার পরিকল্পনা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ‘সেকেন্ড টাইম’ ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে শঙ্কায় শিক্ষার্থীরা দিন যায় বৈঠক হয়, স্থানান্তর হয় না কারওয়ান বাজার

সরকারি বিদ্যালয়ে দূর্বৃত্তের আগুন

জিটিবি নিউজ ডেস্ক : বছরের প্রথম দিনেই দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনে পুড়লো দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার কাটলা ইউনিয়নের অভিরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অফিস ও শ্রেণি কক্ষ। গতকাল রবিবার ভোর রাতে বিদ্যালয় অফিস কক্ষে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। আগুনে পুড়ে গেছে অফিস কক্ষের দাপ্তরিক সব নথিপত্র, আসবাবপত্র, শেখ রাসেল কর্নার এবং সব শিক্ষা উপকরণ। পুড়ে গেছে অফিস কক্ষ সংলগ্ন প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণিকক্ষের মাদুরসহ সব শিক্ষা উপকরণ।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ওবায়দুল ইসলাম বলেন,‘শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলা থেকে শিশুদের জন্য বিনামূল্যের পাঠ্যবই তুলে নিয়ে বিদ্যালয়ের পাশের একটি বাড়িতে রেখে দেই। বই গুলো সকালে শিশু শিক্ষার্থীর মাঝে বিতরণ করার কথা ছিল। সকালে গ্রামের বাসিন্দা জহুরুল ইসলাম আমাকে সংবাদ দেন, আমার বিদ্যালয় আগুনে পুড়ে গেছে। আমি এসে গিয়ে অফিস কক্ষ এবং প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণিকক্ষের সব কাগজপত্র ও শিক্ষা উপকরণ পুড়ে গেছে।

তিনি আরো বলেন, রাতের অন্ধকারে কে বা কারা আগুন দিয়েছে জানি না। তবে, প্রতিষ্ঠার পর থেকে এলাকার কয়েকজনের সঙ্গে এ বিদ্যালয় নিয়ে দ্বন্দ্ব চলছে। বিদ্যালয় নিয়ে আদালতে মামলা পর্যন্ত হয়েছে।

সরেজমিনে ওই বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, মূল রাস্তা থেকে পুকুরের কোলঘেঁষা বিদ্যালয়টির অবস্থান। আগুনে পোড়া অফিসকক্ষসহ ঘরটির টিনগুলো এলোমেলো ভাবে পড়ে আছে। বেঞ্চ, মাদুর, অফিসের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আগুন থেকে বাদ যায়নি বঙ্গবন্ধু কর্ণারও।

অভিরাম পুর গ্রামের বাসিন্দা চন্দর মুর্মু বলেন, বাড়ির কাছে একটাই স্কুল আছে। আমার মেয়ে ওই স্কুলের যায়। সকালে স্কুলে গিয়ে কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি এসেছে বলছে স্কুলে আগুন দিয়ে সব পুড়িয়ে দিছে কেউ। মেয়ের কথা শুনে স্কুলে গিয়ে দেখি বেঞ্চসহ ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী আলেয়া বেগম বলেন, সকালে ঘুম থেকে উঠে বিদ্যালয়ে আসার সময় শুনি আমাদের বিদ্যালয়টি আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে। আমরা ভয় পেয়ে কান্না করছিলাম। পরে বড় স্যার এসে আমাদের বই দিয়েছেন।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কার্যালয়ের সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল ওয়াকিল ওই বিদ্যালয় পরিদর্শন করেছেন। পরে, শিক্ষকদের মাধ্যমে বিভিন্ন শ্রেণির ৫২ জন শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ডেকে নিয়ে নতুন শিক্ষাবর্ষের বই তুলে দেন। একই সঙ্গে প্রধান শিক্ষককে থানায় সাধারণ ডায়েরি করার নির্দেশ দেন।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত বলেন, অভিরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আগুনে পুড়ে যাওয়ার ঘটনায় রবিবার বিকেলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লিখিত অভিযোগ করেছেন। ঘটনাটি তদন্ত করে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পরিমল কুমার সরকার বলেন, সকালে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিষয়টি আমাকে মুঠোফোনে জানিয়েছেন। আমি তাকে থানায় লিখিত অভিযোগ করতে বলেছি। আর ওসিকে বলেছি অভিযোগটি মামলা হিসেবে আমলে নিয়ে সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা নিতে।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © gtbnews24.com
Web Site Designed, Developed & Hosted By ALL IT BD 01722461335