মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:০৭ পূর্বাহ্ন

নোটিশঃ
Gtbnews24.com এর হেড অফিস স্থানান্তর করা হয়েছে। বতর্মান ঠিকানাঃ মাঝিড়া,শাজাহানপুর,বগুড়া।
সংবাদ শিরোনামঃ
সেতাবগঞ্জ পৌরসভা পরিদর্শন করলেন জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট এর সচিব নবাবগঞ্জে ১০ বছরের শিশু কন্যার আত্মহত্যা নেত্রকোণায় ৯৬ জন সেচ্ছাসেবীদের মাঝে চেক বিতরণ অনুষ্ঠিত  গাইবান্ধার ৬ টি উপজেলাসহ পলাশবাড়ীতে নকল প্রসাধনীতে বাজার সয়লাব।। প্রতারিত হচ্ছে সাধারণ জনগণ  কাহালুতে কবি কাজী নজরুল ইসলাম গুণীজন সম্মাননা স্মারক পেলেন – সাংবাদিক  হারুনুর রশিদ  ধর্মপাশায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী সাঃ উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত  নিহত শাহাদাত হত্যাকাণ্ডের স্বীকার বাপ-দাদার পেশা আজও ধরে রেখেছেন ধামইরহাটের নর সুন্দররা   পিরোজপুরে জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত উখিয়া বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করলেন জেলা শিক্ষা অফিসার

শেরপুরে মানবাধিকার কর্মী, মেধাবী শিক্ষার্থী আবু সাঈদ হত্যার বিচার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

তারিকুল ইসলাম, শেরপুর প্রতিনিধি:

মানবাধিকার কর্মী, মেধাবী শিক্ষার্থী আবু সাঈদ হত্যা মামলার আসামিদের গ্রেপ্তার ও সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী পরিবার। ১ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকাল ১১.৩০ মিনিটে শেরপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে নিহতের ছোট বোন তানজিনা আক্তার নয়ন তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমার ভাই ছিল মেধাবী শিক্ষার্থী। সে বিসিএস প্রিলিমিনারি পরিক্ষাতে উত্তীর্ণ এবং পাশাপাশি শেরপুর শহরের স্বনামধন্য একটি স্কুলের সহকারী শিক্ষক। আমার ভাই আমাদের পরিবারের অভিভাবক ছিলেন এবং স্বপ্ন দেখতেন বিসিএস ক্যাডার হয়ে আমাদের পরিবারের দুঃখ দুর্দশা দূর করবেন। কিন্তু একটা মেয়ের কারনে আজ আমরা অভিভাবক হারলাম।
মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ১১ জুন সন্ধ্যায় আতিক মিয়া (৩০) আমার বড় ভাই আবু সাঈদ (৩০) কে শহরের গরুহাটি মহল্লার ভাড়া বাসা ছেড়ে ডেকে নিয়ে যায়। কিন্তু রাত ৯.৩০ মিনিটে অপর বন্ধু জাকির (৩০) জানায় আবু সাঈদ দূর্ধটনায় পতিত হয়েছে এবং তাকে ময়মনসিংহ হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে। পরবর্তীতে ময়মনসিংহ হাসপাতালে জরুরী বিভাগে পৌছাইলে কর্মরত চিকিৎসক আমার ভাইকে মৃত ঘোষণা করে। এই ঘটনায় অপর আসামি ডা. সোয়েব লাশের ময়না তদন্ত না করিয়া বিভিন্ন ধরনের কথাবার্তা ও ভুল বুঝাইয়া দ্রুত সময়ের মধ্যে দাফনের ব্যবস্থা করেন যাতে প্রকৃত ঘটনা আড়াল হয়ে যায়।
অপরদিকে আরো জানা যায়, আবু সাঈদের সাথে শারমিন সুলতানা ডেইজি নামে এক মেডিকেল শিক্ষার্থীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তার পরিবার এই সম্পর্ককে সহজ ভাবে মেনে নেয়নি এবং সাঈদের পরিবারকে দেখে নেয়ার হুমকি দেন।  তার জের ধরে ডেইজির পরিবারের মদদপুষ্ট হয়ে আসামিরা এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন। পরে নিহতের ছোট বোন বাদি হয়ে আতিক মিয়া (৩০), মো. তরিকুল (৩০), জাকির (৩০), ডা. সোয়েব (২৭), শারমিন সুলতানা ডেইজি (২৫), মোছা. জুলি (৩২), মো. আলম মিয়া (৪০) সহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ নামে আদালতে মামলা করে।
মামলা পরবর্তীতে আসামিরা বিভিন্নভাবে প্রভাব খাটিয়ে হত্যার ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করছে এমনকি মামলা তুলে নেয়ার জন্য হুমকি-ধামকি দিচ্ছে। ভুক্তভোগী পরিবার দ্রুত সময়ের মধ্যে আসামিদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি করেছেন।
এসময় মানবাধিকার আইনের নেতৃবৃন্দ ও আবু সাঈদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © gtbnews24.com