বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪৩ পূর্বাহ্ন

নোটিশঃ
Gtbnews24.com এর হেড অফিস স্থানান্তর করা হয়েছে। বতর্মান ঠিকানাঃ মাঝিড়া,শাজাহানপুর,বগুড়া।
সংবাদ শিরোনামঃ
গাজীপুরে অজ্ঞাতনামা মৃত মহিলার পরিচয় প্রয়োজন আইজিপি ও ডিএমপির কমিশনারের দৃষ্টি আকর্ষন ডিএমপির কদমতলী থানার ওসির বদলি প্রত্যাহার চায় বাসিন্দারা শ্রীপুরে জন্ম প্রতিবন্ধী আতিকুলের স্বপ্ন পূরণ করলো ছাত্রলীগের সভাপতি জাকিরুল হাসান জিকু ডিমলায় পল্লীশ্রী’র চেক হস্তান্তর ও উপকরণ বিতরণ নাজিরপুরে অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আবাসন নির্মাণের দরপত্র জমা না নেওয়ার অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বিরুদ্ধে গাবতলীতে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নিমার্ণের স্থান পরিদর্শন গাবতলীর কাগইলে আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা প্রথমে নোটারী পাবলিকে পরে কাজী অফিসে বিয়ে নেত্রকোণার দূর্গাপুরে মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদে সাংবাদ সম্মেলন  উখিয়ায় ১ লাখ ৬০ হাজার পিস ইয়াবাসহ সাদ্দাম নামক চোরাকারবারি আটক: পলাতক ০২

আশ্বিনায় শেষ হচ্ছে আমের মৌসুম

নিজস্ব প্রতিবেদক: এখন বছরের প্রায় ছয় মাস মেলে গ্রীষ্মের রসালো ফল আম। তবে মৌসুমের শেষ দিকের আম সারাদেশে নয়, চাষ হয় শুধু রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে। এদিকের মাটি নাবি জাতের আমচাষের জন্য উপযুক্ত। জেলার বিভিন্ন জায়গায় তাই এখনো ঝুলছে আশ্বিনা জাতের আম। এ আম থাকবে আরও ২০ দিন।

আকারে বেশ বড় জাতের এ আম জেলার চাহিদা মিটিয়ে সরবরাহ হচ্ছে সারাদেশে। মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) সকালে শিবগঞ্জ উপজেলার শহিদুলের বাগানে গিয়ে দেখা যায় থোকায় থোকায় ঝুলছে আশ্বিনা জাতের ফ্রুট ব্যাগিং করা আম।

তিনি  বলেন, এ বছর আমার প্রায় ৬শ মণ আম ছিল। গত ১৫ দিন আগে থেকেই কানসাট বাজারে বিক্রি শুরু করেছি। প্রথমে ১২শ থেকে ১৫শ টাকা মণ দরে বিক্রি করলেও এখন দ্বিগুণ দাম পাচ্ছি। তাই গতকাল থেকে কাঁচা আম পাড়া বন্ধ করে দিয়েছি আরও বেশি দামের আশায়।

এখন বাগানে আমার প্রায় ৫০ মণ আম আছে। এগুলোর মধ্যে শুধু পাকা আমগুলো বিক্রি করছেন তিনি।

মুসলিমপুর এলাকার আমচাষি বাসির আলী বলেন, আমি টাকার অভাবে এ বছর আমে ফ্রুট ব্যাগিং করতে পারিনি। এখন মনে হচ্ছে ভালোই করেছি। কারণ বাজারে ফ্রুট ব্যাগিং করা আমের চেয়ে নন-ফ্রুট ব্যাগিং আমের দামই বেশি। বর্তমানে বাগানে প্রায় ৩০ মণ আম আছে। আশা করছি এ আম বিক্রি করেই লাখ টাকার বেশি পাবো।

শ্যামপুর ইউনিয়নের আমচাষি ইসমাইল হোসেন জানান, মাত্র ৩০ মণ আশ্বিনা ফ্রুট ব্যাগিং করা আম নিয়ে বাগানে পড়ে আছি একটু বেশি দাম পাওয়ার আশায়। আরও ১০ দিন থাকবো। বাজার আরও বাড়তে পারে। তবে আম অনেক নষ্ট হচ্ছে। এজন্য প্রতিদিন পরিচর্যা করে যাচ্ছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম  বলেন, আমের সময় প্রায় শেষ। কিন্তু শিবগঞ্জ, গোমস্তাপুর, ভোলাহাট উপজেলার কিছু বাগানে আশ্বিনা জাতের আম আছে। এই জায়গাগুলোর মাটি ভালো হওয়ায় আম নষ্ট কম হয়, তাই রাখা যায় বেশিদিন। এই আম বাজারে পাওয়া যাবে প্রায় আরও এক মাস। তবে এখন আমের বেশি দাম পেয়ে খুশি চাষিরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © gtbnews24.com