রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন

নোটিশঃ
Gtbnews24.com এর হেড অফিস স্থানান্তর করা হয়েছে। বতর্মান ঠিকানাঃ মাঝিড়া,শাজাহানপুর,বগুড়া।
সংবাদ শিরোনামঃ
বগুড়ার শেরপুরে বিশালপুর ইউনিয়ন বিএনপির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত কাহালু সদর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা থানায় তদবিরে গিয়ে ধর্ষণ চেষ্টা মামলার আসামী গ্রেফতার মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনা অনাকাঙ্ক্ষিত: পররাষ্ট্র সচিব আয়রন ব্রিজ তো নয় যেন মরণ ফাঁদ উখিয়ায় বিভিন্ন অপরাধে জড়িত রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী গ্রেফতার ৬ শিবগঞ্জে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী শাওনের নির্বাচনী উঠান বৈঠক শিবগঞ্জে কৃষকের কলা বাগানের ছড়িতে মেডিসিন ষ্প্রে করে ২শতাধিক কলা নষ্ট করার অভিযোগ শিবগঞ্জ থানা পুলিশের আয়োজনে দূর্গাপূজা উপলক্ষে মত বিনিময় সভা ধামইরহাটে জাহানপুর ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হতে চান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি লুইছার রহমান

“এ যেন দেখার কেউ নেই ” মান্দায় ২১ বছর ধরে দাঁড়িয়ে আছে ব্রিজ

এম,এ রাজ্জাক নওগাঁ প্রতিনিধিঃ
জনদুর্ভোগ লাঘবে দুই দশক আগে নির্মাণ করা হয়েছিল ব্রিজটি। কিন্তু নির্মাণ করা হয়নি সংযোগ রাস্তা। বর্তমানে ইটের গায়ে শেওলা ধরেছে। দু’এক স্থান থেকে খসে পড়তে শুরু করেছে ইট। লতাপাতায় ছেয়ে গেছে একাংশ। এভাবে কালের সাক্ষী হয়ে ঠাঁই দাড়িয়ে রয়েছে ব্রিজটি।
ব্রিজটির অবস্থান নওগাঁর মান্দা উপজেলার নুরুল্লাবাদ ইউনিয়নের চকরামপ্রসাদ গ্রামে। ২০০০ সালের দিকে কদমতলী বিলের পানি গোদাগাড়ী বিলে নিষ্কাশনের লক্ষে সরকারি ক্যানেলের ওপর ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়েছিল।

স্থানীয়রা জানান, বর্ষা মৌসুমে এই ক্যানেলটি চকরামপ্রসাদ গ্রামকে দুই ভাগে বিভক্ত করে দেয়। প্রয়োজনের তাগিদে এপার-ওপার হতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় গ্রামবাসীকে। তখন ক্যানেলের ওপর বাঁশের আড়া তৈরি করে লোকজন চলাচল করেন। এ অবস্থায় দুর্ভোগ লাঘবে সরকারি অর্থায়নে সেখানে একটি ব্রিজ
নির্মাণ করা হয়। কিন্তু নির্মাণ করা হয়নি সংযোগ রাস্তা। তাই ব্রিজটি কোনকাজেই আসেনি গ্রামবাসীর।
গ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রকিব ও আব্দুল জলিল বলেন, যাতায়াত নির্বিগ্ন করতে ক্যানেলের ওপর সরকারিভাবে ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়। তবে কোন দপ্তর এটি নির্মাণ করেছে তা জানা নেই। রাস্তা না থাকায় দুর্ভোগের মধ্যেই তাঁদের চলাচল করতে হচ্ছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে ধর্ণা দিয়েও কাজ হয়নি।
শিক্ষক আব্দুল বারী বলেন, গ্রামবাসীর সুবিধার্থে যাতায়াতের একমাত্র রাস্তায় ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়েছিল। কিন্তু রাস্তা না থাকায় ভোগান্তি কমেনি। বর্তমান সময়ে যোগাযোগের ক্ষেত্রে সকল সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত
হচ্ছেন তাঁরা।
বারিল্যা গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল আওয়াল বলেন, যে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে সরকারি অর্থ ব্যয় করা হয়েছে সেটি ভেস্তে যেতে বসেছে। ব্রিজটি ব্যবহার না হওয়ায় ইট খসে পড়তে শুরু করেছে। জনস্বার্থে অবিলম্বে ব্রিজটিতে সংযোগ
রাস্তা নির্মাণের জোর দাবি জানান।
তবে ব্রিজটি কোন দপ্তর নির্মাণ করেছে তার হদিস পাওয়া যায়নি। উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর কিংবা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন দপ্তর কেউ স্বীকার করছে না ব্রিজটি নির্মাণের বিষয়ে। এ কারণে এর নির্মাণ ব্যয় ও সময় সর্ম্পকে জানা যায়নি।
তবে নুরুল্লাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ বলেন, ‘প্রয়াত চেয়ারম্যান পিয়ার বকস মন্ডলের আমলে ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়ে থাকতে পারে।এর বেশি আমার জানা নেই।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © gtbnews24.com