সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:৪৪ পূর্বাহ্ন

নোটিশঃ
Gtbnews24.com এর হেড অফিস স্থানান্তর করা হয়েছে। বতর্মান ঠিকানাঃ মাঝিড়া,শাজাহানপুর,বগুড়া।

 লক্ষ্মীপুরে জনসেবা ফার্মেসীর ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথ করোনা কালীন সময়ে সরকারের দেওয়া উপহার ২৫০০ টাকার মেসেজ ভূয়া বলে টাকা আত্মসাৎ করার চেষ্টা, জনগণের চাপে টাকা ফেরত। 

  লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ
করোনা কালীন সময়ে সরকারের দেওয়া উপহার ২৫০০ টাকার মেসেজ ভূয়া বলে টাকা আত্মসাৎ করার চেষ্টা, এমন অভিযোগ উঠে এসেছে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার দক্ষিণ স্টেশনের জনসেবা ফার্মেসীর ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথের বিরুদ্ধে।অভিযোগ কারী মনি রানী নাথ, সুবর্ণাচর নোয়াখালী জেলার চর বজলুল করিম গ্রামের বাসিন্দা।মতিলাল বাড়ির মেয়ে, স্বামী পলাশ চন্দ্র নাথের স্ত্রী মনি রানী নাথ।তিনি ১৭/০৮/২০২১ইং তারিখে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার দক্ষিণ স্টেশনের গোলচক্করের    উত্তরে জনসেবা ফার্মেসী।

 ঐফার্মেসীতে যাওয়া হয় মনি রানী নাথ কে।করোনা কালিনী সময়ে জুলাই মাসে  সরকারের দেওয়া উপহার হিসেবে  মোবাইলের বিকাশের মাধ্যমে দেওয়া হয়  ২৫০০ টাকা।সে টাকার মোবাইলে মেসেজ পেয়ে মনি রানী নাথ লক্ষ্মীপুর জনসেবা ফার্মেসীর প্রোঃ বাবু কার্ত্তিক দেবনাথ এর ভাই ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথের নিকট যাওয়া হয়।সেখানে গিয়ে ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথ কে, মনি রানী নাথ মোবাইলটি হাতে দিয়ে বললেন, আমার মোবাইলের বিকাশে করোনা কালীন সময়ে সরকারের দেওয়া উপহার ২৫০০ টাকার মেসেজ আসছে।আমাকে টাকাটা বের করে দিন।এ কথা বলে মোবাইলটি তাকে দেওয়া দেয়।ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথ প্রায় ১০/১৫ মিনিট পর্যন্ত ঘুরে দেখার পরে তার পিন কোড দিয়ে ঐ ২৫০০ টাকা নিয়ে যায় ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথের একাউন্টে, বলেন, মনি রানী নাথ।তিনি আরও বলেন, যে একাউন্টের এজেন্টে নাম থাকে বাবু কার্ত্তিক দেবনাথ।পরেই তাকে বলা হয় আপনার মোবাইলে কোনো ২৫০০ টাকার মেসেজ নেই।যে মেসেজ আপনে দেখেন তা হচ্ছে ভূয়া টাকার মেসেজ।
ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথ মনি রানী নাথ কে এ কথা বলছেন ,ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথ জানান মনি রানী নাথ কে,এরকম বহু মেসেজ দিয়ে থাকেন সরকার জনগণের নামে ভূয়া টাকার উপহারের মেসেজ।তিনি আরও বলেন আপনার মতোই হাজার হাজার মানুষেরা এই রকম সরকারের ভূয়া মেসেজ পেয়ে হয়রানি শিকার হচ্ছে।শুধু  আপনে একা নয়,আপনার মতো আরও অনেকে হয়রানি হয়।এটা কোন টাকার মেসেজ নয়,মনি রানী নাথ আবারও একই রকম প্রশ্ন করে বলেন।আপনে কি বলছেন, ডাক্তার সাব, আমি দেখলাম আমার বিকাশ একাউন্টে সরকারের উপহার দেওয়া ২৫০০ টাকার মেসেজ।মনি রানী নাথ আর দেরি না করে সেখান থেকে চলে আসা হয় তার মালিকের ভাষায়।তিনি তার মালিক কে সব ঘটনার সম্পর্কে বিস্তারিত জানিয়ে পরে সেখান থেকে ছুটি নিয়ে তার গ্রামের বাড়িতে চলে যান ২৫০০ টাকা না পাওয়ার উদ্দেশ্যে।সেখান থেকে যায় তার এলাকার ইউনিয়ন পরিষদে।
পরে বিষয়টি জানায় সেখানে থাকা ডিজিটাল কম্পিউটার অপারেটর কে, তিনি বলেন, আপনে ই, এন, নো অফিসে গিয়ে দেখবেন একজন ডিজিটাল কম্পিউটার অপারেটর রয়েছে।তাকে আপনা সমস্যার কথা জানান।
মনি রানী নাথ সরকারের দেওয়া উপহার ২৫০০ টাকার কথা জানান ডিজিটাল কম্পিউটার অপারেটর কে।তার কথা শুনে অপারেটর কম্পিউটারে ডুকে দেখেন মনি রানী নাথের নামের ২৫০০ টাকা উত্তলন হয়েছে।বাবু কার্ত্তিক দেবনাথের নামে তার বিকাশ একাউন্টে।মনি রানী নাথ, আর দেরি না করে আবার ফিরে আসেন লক্ষ্মীপুর জনসেবা ফার্মেসীতে।তিনি সেখানে এসে জিজ্ঞেস করেন ফার্মেসীতে থাকা আগের সেই লোকটা।যার নাম হচ্ছে ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথ।মনি রানী নাথ ২৫০০ টাকা কথা না বলতে ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথ রেগে মেগে আগুন হয়ে মনি রানী নাথ কে উল্টো পাল্টা জবাব শুরু করেন।পরে একপর্যায়ে দুই পক্ষে মধ্যে কথা কাটাকাটি দেখে চতুর দিকে থাকা মানুষেরা ভিড় হইতে দেখে তৈড়ী গৌড়ী করে না দেওয়া ২৫০০ টাকা ফেরত দেওয়া হয় মনি রানী নাথ কে।সরকারের দেওয়া ২৫০০ টাকা উপহার ভূয়া টাকার মেসেজ বলেন,  ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথ কে এবিষয়ে জিজ্ঞেসা করা হয়।
ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথ তিনি মিথ্যা শিকার করার চেষ্টা করে ক্লান্ত ভাষায় বলেন।মনি রানী নাথ আমার নামে মিথ্যা অপবাদ দিচ্ছে।টাকা মেসেজ আসতে একটু দেরি হয়।এদিকে একমাস ধরে মনি রানী নাথ সরকারের দেওয়া উপহার ২৫০০ টাকা না পাওয়ার কারণে বিভিন্ন জাগায় তাকে জেতে হয়েছে প্রতিদিন। ১১০ টাকা করে গাড়ি ভাড়া লক্ষ্মীপুর থেকে সুবর্ণচর নোয়াখালীতে আসা যাওয়ার ভাড়া দেওয়া হয়েছে।
ভূক্তভোগী মনি রানী নাথ সাংবাদিকদের জানান,এ ২৫০০ টাকার জন্য আমাকে আরও কত ২৫০০ টাকা দিতে হয়েছে যাওয়া আসার গাড়ি ভাড়া যাতায়াত খরচ হয়েছে তা আমার হিসাব নেই। ঘটে যাওয়া ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত জানার জন্য সাংবাদিকদের যাওয়া হয়।লক্ষ্মীপুর জনসেবা ফার্মেসীর প্রোঃ বাবু কার্ত্তিক দেবনাথের নিকট।তিনি শুরুতেই রেগেমেগে আগুন হয়ে উঠে তার দোকানের নাম জানতে চাইলে।পরে একপর্যায়ে বাবু কার্ত্তিক দেবনাথের অনুমতি নিয়ে বসা হয় তার ফার্মেসীতে।ঘটনার সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারি এঘটনা সত্য।এদিকে বাবু কার্ত্তিক দেবনাথ তার ভাইয়ের অপরাধ পেয়েও তার ভাই কে কিছু না বলে ভাইয়ের পক্ষে সাপোট দিচ্ছেন তিনি। বাবু কার্ত্তিক দেবনাথ সাংবাদিকদের জানান, আমি একজন ঢাকা জজ কোটের এডভোকেট আমাকে সবাই চিনে আমি কি এবং কেমন ধরনের মানুষ, আমি যাকে ধরি তার জান না যাওয়া পর্যন্ত আমার ছাড়া হয়না।
তিনি আরও বলেন, এই মেয়ের কারণে যদি আমার ভাইয়ের কোন ক্ষতি হয় তাহলে আমি তাকে এই দেশের কোথাও থাকতে দেওয়া হবেনা।আমিও লেখতে পারি, আমি এই মেয়েকে জেলে নিয়ে ছাড়বো।তিনি আরও জানান,যে ব্যক্তি এই মেয়ে কে সহয়তা করার চেষ্টা করিবে তাকেও আমি ছাড়বোনা,বলে হুমকি ধমকি দিচ্ছেন সাংবাদিকদের সামনে।বার বার বাবু কার্ত্তিক দেবনাথ, একথ বলছেন।তবে অসহায় নিরীহ হতদরিদ্র পরিবারের মেয়ে মনি রানী নাথ তার কোনো থাকার স্থান নেই।তায় এরকম হয়রানির শিকার আর জাতে কাউকে না পড়তে হয়।ডাক্তার চন্দ্র দেবনাথের হাতে।তাকে আইনের আওতায় এনে তার বিচার দাবী জানিয়েছেন হতদরিদ্রের স্বজনরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © gtbnews24.com