রবিবার, ২৫ Jul ২০২১, ০৭:৫৪ অপরাহ্ন

নোটিশঃ
দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় জিটিবি নিউজ এর সাংবাদিক  নিয়োগসহ পরিচয় পত্র নবায়ণ চলছে।

গণপরিবহন বন্ধ তবুও রাস্তায় যানজট!

নিজস্ব প্রতিবেদক:

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকারঘোষিত দুই সপ্তাহব্যাপী কঠোর বিধিনিষেধ (লকডাউন) আগামী বুধবার (১৪ জুলাই) শেষ হচ্ছে। ঘোষিত লকডাউন শেষ হতে এখনো আরও দুই দিন বাকি থাকলেও রাজধানী ঢাকার রাস্তাঘাট স্বরূপে ফিরতে শুরু করেছে। সোমবার (১২ জুলাই) রাজধানীর বিভিন্ন পাড়া-মহল্লা থেকে শুরু করে প্রধান প্রধান সড়কে গত কয়েক দিনের তুলনায় অধিক সংখ্যক রিকশা, মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার, জিপ, মাইক্রোবাস, পিকআপ ভ্যান ও প্যাডেলচালিত রিকশাসহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন বেশি চলাচল করতে দেখা গেছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হওয়ার নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও রাস্তাঘাটে বিপুল সংখ্যক মানুষকে চলাচল করতে দেখা যায়। কোথাও কোথাও অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে যানজটও দেখা যায়।

লকডাউন শুরুর প্রথম সপ্তাহখানেক বিভিন্ন গুরত্বপূর্ণ সড়কের মোড়ে মোড়ে চেকপোস্ট বসিয়ে যানবাহনের কাগজপত্র তল্লাশি, গাড়ি নিয়ে বের হওয়ার কারণ এমনকি রাস্তাঘাটে বের হওয়া মানুষকে পুলিশ, র্যাব, বিজিবি ও সেনাসদদ্যের জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হতে হলেও গত দু/একদিন যাবত আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতা কম দেখা যায়।

সোমবার সরেজমিন রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে অধিক যানবাহন ও জন চলাচলের দৃশ্যে চোখে পড়ে। গণপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকার কারণে অধিকাংশ মানুষকে রিকশায় চলাচল করতে দেখা যায়। যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গণপরিবহন না চলার সুযোগ নিয়ে রিকশাচালকরা অতিরিক্ত ভাড়া হাঁকছেন।

এদিকে গত কয়েকদিন যাবৎ করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুহার অব্যাহতভাবে বৃদ্ধিতে শঙ্কিত রোগতত্ত্ববিদ ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। গতকাল দেশে করোনায় সর্বোচ্চ রেকর্ড সংখ্যক ১১ হাজার ৮৭৪ জন করোনা রোগী শনাক্ত ও সারাদেশে ২৩০ জনের মৃত্য হয়। এ অবস্থায় তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লকডাউনের মেয়াদ আরও বৃদ্ধি করা উচিত বলে মন্তব্য করছেন।

আগামী ২১ জুলাই পবিত্র ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে সরকার লকডাউনের মেয়াদ বৃদ্ধি করবে নাকি শিথিল করবে তা নিয়ে জনমনে নানা জল্পনা-কল্পনা চলছে। কেউ বলছেন লকডাউনের মেয়াদ বাড়লেও বিভিন্ন নিয়মকানুন শিথিল হতে পারে।

সোমবার সরেজমিন রাজধানীর কারওয়ানবাজার এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সার্ক ফোয়ারা গোলচত্ত্বরের চারপাশে অসংখ্য যানবাহন চলাচল করছে। সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ট্রাফিক পুলিশকে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায়। এক পর্যায়ে যানজটে পড়ে রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্সকে সাইরেন বাজিয়ে উল্টোপথে যেতে দেখা যায়।

কারওয়ানবাজারে রিকশার জন্য দাঁড়িয়েছিলেন রাজধানীর বিজয়নগরের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ইসতিয়াক ইসলাম। তিনি জানান, কারওয়ানবাজার থেকে বিজয়নগরের ভাড়া স্বাভাবিক সময়ে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা হলেও এখন রিকশাচালক ৯০ টাকা চাইছেন। তিনি ৮০ টাকা বললেও তারা যেতে রাজি হচ্ছেন না বলে জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © gtbnews24.com