সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন

নোটিশঃ
দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় জিটিবি নিউজ এর সাংবাদিক  নিয়োগসহ পরিচয় পত্র নবায়ণ চলছে।

হজের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত আগামী সপ্তাহে

জিটিবি নিউজঃ করোনাভাইরাস মহামারির কারণে এ বছর পবিত্র হজ নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে এক অনিশ্চয়তা। ফলে বিশ্বের যে প্রায় ২৫ লাখ মুসল্লি আল্লাহর ডাকে সাড়া দিতে প্রতি বছর সৌদি আরবে যান, তারা রয়েছেন উদ্বেগে। উদ্বেগে মুসলিম জাহানের সবাই। আগামী ২৮শে জুলাই শুরু হওয়ার কথা হজ। কিন্তু এবার হজ হবে কিনা সে বিষয়টি এখনো কেউ নিশ্চিত নন। তবে বিবিসি বলেছে, এ বছর হজ হবে কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে আগামী সপ্তাহে। করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে শুরু থেকেই বিধিনিষেধ আরোপ করে সৌদি আরব। এমনকি তারা পবিত্র মক্কা বা গ্রান্ড মসজিদ ও মদিনায় মসজিদে নববীতে সর্বসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করে।

জারি করা হয় কারফিউ। তবে গতকাল রোববার থেকে মক্কার সব মসজিদ খুলে দেয়া হয়েছে। এর ফলে অনেকেই আশার আলো দেখতে পাচ্ছেন। বিবিসি বলেছে, সৌদি আরবের সরকার চাইছে এ বছরের হজটাকে সামনে এগিয়ে নিতে। হজের আনুষ্ঠানিকতা থেকে প্রতি বছর ৫০০ কোটি ডলার রাজস্ব পায় সৌদি আরব। এমন অবস্থায় করোনাভাইরাসের কারণে ৯০ বছরের ইতিহাসে এবারই প্রথম হজ নিয়ে শংকা দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে সৌদি আরব দেশজুড়ে কারফিউ তুলে নিয়েছে। তবে বাদবাকি কড়াকড়ি বহাল থাকবে। আর্থিক ও বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হবে, কিন্তু আন্তর্জাতিক যাতায়াত বন্ধ থাকবে।

করোনার কারণে হজ নিয়ে আগেভাগেই মুসলিম দেশগুলোকে সতর্ক করেছিল সৌদি আরব। মার্চেই তারা হজযাত্রীদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বিলম্ব করার জন্য মুসলিম দেশগুলোকে আহ্বান জানায়। তাদেরকে থাকার স্থান, খাবার দাবার, পরিবহন, হোটেল বুকিংয়ের ক্ষেত্রে অপেক্ষা করতে বলা হয়। তারপর থেকে এখন পর্যন্ত হজের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেনি সৌদি আরব। তবে যদি এবার করোনা সংক্রমণের মধ্যে হজ অনুমোদন করে সৌদি আরব তা হবে ব্যতিক্রম। উপসাগরীয় অঞ্চলে করোনা সবচেয়ে বেশি আঘাত করেছে সৌদি আরবকে। সেখানে কমপক্ষে এক লাখ ৩২ হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মারা গেছেন কমপক্ষে ১০০০ মানুষ। অনেক বিশেষজ্ঞ মতদিয়েছেন, এবার এই করোনা সংক্রমণের মধ্যে হজ হলে তাতে বড় রকমের স্বাস্থ্য ঝুঁকি থাকতে পারে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে উমরাহ হজ বন্ধ করে দেয় সৌদি আরব। এই নিষেধাজ্ঞা এ মাসের শেষ পর্যন্ত বহাল থাকবে। সৌদি আরব উমরাহ নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত দ্রুততার সঙ্গে নিলেও হজের সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে বিলম্ব করছে। উল্লেখ্য, পবিত্র হজ মুসলিমদের কাছে ইসলামের ৫টি স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম। ইসলামী এই আনুষ্ঠানিকতা থেকে সৌদি আরব খুবই ভালো অঙ্কের রাজস্ব পায় প্রতি বছর। এ বছর করোনাভাইরাসের কারণে তেলের দাম কমে যাওয়ায় এরই মধ্যে সেখানকার অর্থনীতিতে আঘাত লেগেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © gtbnews24.com