সোমবার, ০১ Jun ২০২০, ১১:০৫ পূর্বাহ্ন

নোটিশঃ
দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় জিটিবি নিউজ এর সাংবাদিক  নিয়োগসহ পরিচয় পত্র নবায়ণ চলছে।

নওগাঁয় বোরো ধানের বাম্পার ফলোনের সম্ভাবনা শ্রমিক সংকট নিরসনে প্রশাসনের নানামূখী উদ্যোগ

মহাদেবপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ শস্যভান্ডার হিসাবে খ্যাত নওগাঁ জেলায় এবার বোরো ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে জেলায় ১ লক্ষ ৮০ হাজার হেক্টর জমিতে ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ১ লক্ষ ৮২ হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে ইরো-বোরো ধান আবাদ করা হয়েছে। বড় ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ এখনো হানা না দেয়ায় ধানের বাম্পার ফলনের আশা করেছেন স্থানীয় কৃষি বিভাগ ও কৃষকরা ইতিমধ্যে জেলার বিভিন্ন স্থানে শুরু হয়েছে বোরো ধান কাটা-মাড়াই। তবে প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের কারণে কৃষকরা কিছুটা শ্রমিক সংকটের দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। তবে সেই সংকট কাটাতে ও পাকা ধান কৃষকের ঘরে তুলে দিতে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসক মোঃ হারুন অর রশীদ জানান, খাদ্য উদ্বৃত্ত জেলা নওগাঁয় শুরু হচ্ছে বোরো ধান কাটা-মাড়াই। এরই মধ্যে বিভিন্ন জেলা থেকে আসতে শুরু করেছে ধান কাটা শ্রমিক। গন্তব্যে পৌঁছার পর প্রানঘাতি করোনা আতঙ্কে প্রত্যেকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে। থাকার জন্য খুলে দেয়া হচ্ছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং তারা যেন স্বাস্থ্য বিধি মেনে ধান কাটে সেজন্য তাদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।
একই সাথে স্থানীয় যেসব শ্রমিক আছে, যুব সমাজ ও বিভিন্ন শ্রেণির মানুষকে কাজে লাগানো হবে ধান কাটার কাজে।

এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর কৃষি প্রনোদনার আওতায় জেলায় ৬৫টি হারভেষ্টার মেশিন নিয়ে আসা হয়েছে। এসব মেশিন দিয়ে ১ ঘন্টায় ৩বিঘা জমির ধান কাটতে পারবে। তাই এসব মেশিন কৃষকের ধান কাটা কাজে লাগানো হবে। যাতে কৃষক সুষ্ঠভাবে পাকা ধান ঘরে তুলতে পারে। তিনি আরও বলেন, খাদ্যমন্ত্রী একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছে। তিনি জেলার ৯৯টি ইউনিয়নে ধানকাটা শ্রমিকদের শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপের জন্য ১৮০টি থার্মাল স্ক্যানার দিয়েছেন। এবং এসব থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে কৃষক পর্যায়ে যারা শ্রমিক হিসাবে কাজ করছে তাদের শরীরের তাপমাত্রা মাপার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। ফলে কারো শরীরে তাপমাত্রা বেশি থাকলে তাকে চিহ্নত করে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এটি খাদ্যমন্ত্রীর একটি ভালো উদ্যোগ বলে জানান তিনি।

এ ব্যাপার জেলায় বোরো ফসল সুষ্ঠভাবে ঘরে তোলার স্বপ্নে কৃষকের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে। কৃষকেরা ধানের নায্য মূল্য পাওয়ার জন্য শেখ হাসিনা সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেন। কৃষকেদের ক্ষোভ সিন্ডিকেট ও ফড়িয়া ব্যবসায়ীরা ধানের বাজার নিয়ন্ত্রেণে রেখে ইচ্ছামত মূল্য বসিয়ে নির্ধারণ করে তারা ধান কিনে গুদামজাত করেন। ফলে বর্গাচাষী ও মধ্যবিত্ত চাষীরা নায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হন এবং ধান বিক্রি করে উৎপাদন খরচ তুলতে হিমশিম খেতে হয়। তাই কৃষকদের দাবী ধান কেনা মৌসুমের শুরুতেই বাজার মনিটরিং তদারকি জোরদার করে সিন্ডিকেট ও ফড়িয়া ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট ভেঙ্গে ফেলে ন্যায্য মূল্যে ধান ক্রয়ের ব্যবস্থা করার অনুরোধ জানান।

মহাদেবপুরে করোনায় কর্মহীন ঘরবন্দী মানুষের ঘরে খাদ্য সামগ্রী মাতাজি হাট বন্ধু মহল

মহাদেবপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ করোনায় কর্মহীন মানুষের ঘরে খাবার পৌঁছে দিয়ে এলাকায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন উপজেলার রাইগাঁ ইউনিয়নের মাতাজিহাট এলাকার কয়েকজন উদ্যোমী যুবক। গতকাল ৩০ এপ্রিল বৃহস্পতিবার মাতাজিহাটে গিয়ে দেখা যায় সানোয়ার হোসেন মানিক, জুয়েল হোসেন, মহসিন আলী, সাহাব উদ্দীন, রন্টু সাহা ও স্বপন মল্লিক সহ এলাকার বেশ কিছু উদ্যোমী যুবক “মহামারি মোকাবেলায় খাদ্য সহায়তায় আমরা” এই শিরোনামে কিছু হ্যান্ডবিল তৈরি করে শুধুমাত্র কয়েকটি মোবাইল নং লিখে এলাকায় প্রচার করে দিয়েছে।

সেখানে কারো কোনো নাম বা ঠিকানা নেই। করোনায় কর্মহীন ক্ষুধার্ত মানুষেরা নম্বরগুলোতে মোবাইল করে খাদ্য সহায়তা চাইলে তাদের ঠিকানা অনুযায়ী রাতের অন্ধকারে চাল, ডাল, আটা, আলু, তেল, লবণ, সাবানসহ নিত্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। রাইগাঁ বন্ধু মহল এর মূল উদ্যোক্তা সানোয়ার হোসেন মানিক নাম পরিচয় প্রকাশ না করার শর্ত দিয়ে বলেন, আমরা বন্ধু মহল নিজস্ব অর্থ দিয়ে করোনায় কর্মহীন মানুষের জন্য সহযোগিতার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আমরা যে লিফলেটটি বিতরণ করেছি সেখানে কারো নাম পরিচয় নেই, শুধুমাত্র কয়েকটি মোবাইল নম্বর দেয়া হয়েছে।

যে নম্বরগুলোতে মোবাইল করলে আমরা রাতের অন্ধকারে এসব খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছি। এছাড়াও এলাকার কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের মাঝে নিজ উদ্যোগে রাতের অন্ধকারে বাড়ি বাড়ি খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছি। তিনি আরো জানান, এ পর্যন্ত ৪শ পরিবারে এসব খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হয়েছে। প্রয়োজনে আমাদের এ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ অব্যাহত থাকবে। ওদের এ মনকাড়া উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন যিনি শুনেছেন তিনিই। তাদের বৃহৎ মনের এই তৎপরতা নতুন প্রজন্মের জন্য শিক্ষণীয় হয়ে থাকবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © gtbnews24.com