অস্থির ক্রোয়েশিয়া -সইছে না ফ্রান্স-আজ ঘটবে মহা প্রণয় !!

জিটিবি নিউজ ডেস্কঃ  রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনালে আজ ফ্রান্সের মুখোমুখি ক্রোয়েশিয়া। বিশ্বকাপ ইতিহাসে দ্বিতীয়বার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার সুযোগ এবার ফ্রান্সের সামনে। অন্যদিকে, প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া এই প্রথম বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলবে। দীর্ঘ একমাস ধরে চলতে থাকা গ্রেটেস্ট শো’র সমাপনী দিনও আজ। ১৯৩০ সাল থেকে শুরু হওয়া বিশ্বকাপের ৮৮ বছর পার হতে চলছে। গত ২১টি বিশ্বকাপ থেকে সর্বোচ্চ পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ব্রাজিল, ইতালি ও দুই জার্মানি মিলে চারবার, দুইবার করে ট্রফি জিতেছে উরুগুয়ে, আর্জেন্টিনা। আর একবার বিশ্বকাপ জিতেছে ফ্রান্স, ইংল্যান্ড ও স্পেন। এবার রাশিয়া বিশ্বকাপে চূড়ান্ত লড়াইয়ের আগে হয়ে গেছে ৬২টি খেলা। ফাইনালের একদিন আগে গোল হয়েছে ১৬১টি। এবার সবচেয়ে বেশি ১৪ গোল করেছে বেলজিয়াম। এদিকে, ১৯৯৮ সালে এই ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে সেমিফাইনালে সহজেই জিতেছিল ফ্রান্স। এবারেও কি সেই ঘটনারই পুনরাবৃত্তি হবে? নাকি ক্রোয়েশিয়ার কাছে আজ ধরাশায়ী হচ্ছে ফ্রান্স? তার উত্তর জানতে অপেক্ষা আর মাত্র কয়েক ঘণ্টার। ফ্রান্সের অবশ্য বিশ্বকাপ জেতার অভিজ্ঞতা রয়েছে।

২০ বছর আগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল তারা। ফের জিতলে দ্বিতীয়বার চ্যাম্পিয়ন হবে ফরাসিরা। কিন্তু ক্রোয়েশিয়ার ফুটবল ইতিহাসে এবার নতুন ইতিহাস গড়ার সুবর্ণ সুযোগ। ক্রোয়েটরা যদি এবার ফ্রান্সকে বধ করে ট্রফি জিততে পারে সেটা হবে বিশ্বকাপের রূপকথার গল্প। এদিকে, আজ খেলোয়াড় এবং কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ জয়ের অনন্য রেকর্ড গড়তে চান ফ্রান্সের কোচ দিদিয়ের দেশ। এর আগে এই নজির গড়েছেন দুজন। ব্রাজিলের মারিও জাগালো এবং ফ্রান্সের বেকেনবাওয়ার। মজার ব্যাপার হলো, এবার রাশিয়া বিশ্বকাপে যেন কোনো যুক্তিই খাটেনি! তাই ফাইনালে ফলাফল না হওয়া পর্যন্ত কোনো ভবিষ্যদ্বাণী বা আগাম কথা বলার সাহস পাচ্ছেন না কেউ। কারণ, ফাইনালে ফ্রান্স-ক্রোয়েশিয়া দুই দলেরই সম্ভাবনা ফিফটি-ফিফটি। ফ্রান্সের অন্যতম ফেভারিট হিসেবে চিহ্নিতও হচ্ছিলেন গ্রিজম্যান, এমবাপেরা। অন্যদিকে, ক্রোয়েশিয়ার ফাইনালে ওঠা অবাক করার মতো। এবারই প্রথমবার বিশ্বকাপ ফাইনাল খেলবে তারা। দুই দলেই আছেন বেশ কয়েকজন প্রতিভাবান তারকা। ফ্রান্সে যেমন পল পগবা, এন’গোলো কান্তে, মাতুইদিরা রয়েছেন মাঝমাঠে বল দখলের লড়াইয়ে। ক্রোয়েশিয়ার তেমনই আছেন লুকা মদ্রিচ, ইভান রাকিতিচরা। ফ্রান্স সামনে রাখছে জিহুকে, ক্রোয়েশিয়া মাঞ্জুকিচকে। ফ্রান্স অবশ্য গোলের জন্য কোনো একজনের ওপর নির্ভরশীল হচ্ছে না। রক্ষণভাগের ফুটবলাররাও গোল করে যাচ্ছেন। তবে এবার দুই দলের গোলরক্ষকই নির্ভরযোগ্য খেলোয়াড় মনে হচ্ছে। তারা হলেন ফ্রান্সের লরিস, ক্রোয়েশিয়ার সুবাসিচ। ১৯৯৮ সালে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলতে এসেই ফুটবলপ্রেমীদের চমকে দিয়েছিল নবাগত ক্রোয়েশিয়া। বিশ্বের পরাশক্তিদের পেছনে ফেলে তৃতীয় স্থান অর্জন করেছিল তারা। সেই ক্রোয়েশিয়া এবার রাশিয়ায় নিজেদের পঞ্চম বিশ্বকাপে ফাইনালে খেলছে! আজ মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় শুরু হবে ফাইনাল ম্যাচটি।

৮১ হাজার দর্শকের সামনে নিজেদের যোগ্যতার প্রমাণ দিতে প্রস্তুত দুই দল। এদিকে, গত শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ানি ইনফ্যান্টিনো বলেন, এবার রাশিয়া বিশ্বকাপটি হচ্ছে সর্বকালের সেরা বিশ্বকাপ। আর এবার রাশিয়ার ১১টি শহরের ১২টি স্টেডিয়ামের কাছে ফ্যানজোনগুলোতে এ মহারণকে ঘিরে আনন্দ-উৎসব করেছে প্রায় ৭ মিলিয়ন ফুটবল সমর্থক! কি ছিলো না এবারের আয়োজনে। তাই এবারের আসরটি ছিল বিশ্বকাপের সেরা আসর।এদিকে, মাত্র সাড়ে চার মিলিয়ন বা প্রায় ৪৫ লাখ মানুষের বসবাস ক্রোয়েশিয়ায়। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এত কম জনসংখ্যার কোনো দেশ আগে কখনো ফাইনাল খেলেনি। ক্রোয়েশিয়ানরা প্রথমবারের মতো গড়লো এই ইতিহাস।নিজেদের দেশের সবচেয়ে বড় এই সাফল্যে আনন্দে উত্তাল পুরো ক্রোয়েশিয়া। ফাইনাল ম্যাচে মাঠের খেলায় মূলত ১১ জন খেললেও অদৃশ্য খেলোয়াড় হিসেবে ক্রোয়েশিয়ার সকল নাগরিকই লুঝনিকিতে উপস্থিত থাকবেন বলে মনে করেন ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার ইভান রাকিটিচ। এই ম্যাচটি পুরো ক্রোয়াট জাতির জন্য ঐতিহাসিক উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই ম্যাচটি শুধু মাঠে থাকা ১৪-১৫ জন খেলোয়াড়ের জন্য ঐতিহাসিক নয়, পুরো ক্রোয়াট জাতির জন্য এটি বিশেষ এক ম্যাচ। ফাইনাল ম্যাচের দিন মাঠে এবং টিভির পর্দায় দৃষ্টি থাকবে সে দেশের ৪৫ লাখ মানুষেরই! ইভান রাকিটিচ আরও বলেন, স্টেডিয়ামে যদি জায়গা থাকতো তাহলে ৪৫ লাখ ক্রোয়েট মানুষ দিয়ে ভরপুর থাকতো। এদিকে, ইংল্যান্ডের স্ট্রাইকার হ্যারি কেইন পাঁচ ম্যাচে (তৃতীয় স্থান ম্যাচ ছাড়া) গোল করেছেন মোট ছয়টি। আর বেলজিয়ামের স্ট্রাইকার রোমেলু লুকাকু সমসংখ্যক ম্যাচ খেলে গোল করেছেন ৪টি।

গতকাল শনিবার ছিল এ দুই গোল মেশিনের সোনার বুট দখলের লড়াই। অথচ কয়েক দিন আগেও ছবিটা ছিল সম্পূর্ণ উল্টো। মনে করা হচ্ছিল, বেলজিয়াম ও ইংল্যান্ডের মধ্যে কেউ বিশ্বকাপ জিতবে। কিন্তু তারা সেমিফাইনালে ফ্রান্সের কাছে হেরে বেলজিয়াম, আর লুকা মদ্রিচদের ক্রোয়েশিয়ার কাছে হেরে ইংল্যান্ডের স্বপ্নভঙ্গ হয়। আজ ফাইনাল খেলা শুরুর ৩০ মিনিট আগে থাকবে সমাপনী অনুষ্ঠান। জমকালো সমাপনী অনুষ্ঠানে মঞ্চ মাতাবেন আমেরিকার মেগাস্টার উইল স্মিথ। যুক্তরাষ্ট্রের এই অভিনেতা ও র‌্যাপার বিশ্বকাপের অফিসিয়াল গান ‘লিভ ইট আপ’ গাইবেন। তার সঙ্গে গাইবেন যুক্তরাষ্ট্রের আরেক শিল্পী নিকি জ্যাম ও কসোভোর গায়ক এবং গীতিকার ইরা ইস্তেরেফি।স্মিথ বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেও ছিলেন। আজ সমাপনী অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণও তিনি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মূল আকর্ষণ ছিলেন ইংল্যান্ডের গ্লোবাল মিউজিক আইকন রবি উইলিয়ামস। গত ১৪ জুন ৩২টি দলকে আটটি গ্রুপে বিভক্ত করে পর্দা উঠে ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের। দেখতে দেখতে আজ রাতেই ভাঙবে বিশ্ব মিলনমেলা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this:

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD